ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ জাতীয় সংসদে বলেন, স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের কারণে সারা বিশ্বে বাংলাদেশকে ব্রান্ডিং করার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘সব বাধাবিপত্তি ও ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এই গতি যেন আর কেউ রোধ করতে না পারে সেজন্য সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, অনেক রকম চক্রান্ত ষড়যন্ত্র থাকবে। সেইগুলো মা'থায় নিয়ে আমাদের চলতে হবে। যতই সমালোচনা হোক বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে আম'রা কাজ করে যাচ্ছি এবং করে যাবো। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে।’

আজ রোববার একাদশ জাতীয় সংসদের পঞ্চদশ অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে সংসদ নেতা এসব কথা বলেন। বক্তব্যের প্রায় পুরো অংশ জুড়েই বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের সার্বিক প্রেক্ষাপট এবং এক্ষেত্রে সরকারের নেওয়া পদক্ষেপগুলো তুলে ধরেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘উন্নয়নশীল দেশে যাওয়ার কারণে আম'রা সুবিধা যেমন পাবো তেমনি, স্বল্পোন্নত দেশের সুযোগগুলো পাবো না। অবশ্য আম'রা ২০২৬ সাল পর্যন্ত সময় চেয়ে নিয়েছি করো'নাকালের সময়ের ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার জন্য।’

তিনি বলেন, ‘এখন আমাদের মূল লক্ষ্য একটি সামনে আছে। ২০৪১ সালের মধ্যে যেন বাংলাদেশ উন্নত, সমৃদ্ধ দেশ হয়, সে লক্ষ্য অর্জন করা।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একটি বিষয়ে আজ গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা করব। প্রকৃতপক্ষে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পর দীর্ঘ সময় ধরে আওয়ামী লীগ সরকারে ২০০৮ এর নির্বাচনি ইশতেহারে আম'রা ঘোষণা দিয়েছিলাম বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে। রূপকল্প ২০২১ আম'রা ঘোষণা দেই। তারই ভিত্তিতে প্রেক্ষিত পরিকল্পনা প্রণয়ন করি ২০১০ থেকে ২০২০ পর্যন্ত। সুপরিক'ল্পিতভাবে দেশের উন্নয়নে আম'রা ব্যাপক কাজ করি। একটি লক্ষ্য স্থির করে কোনো দেশ যদি এগিয়ে যায়, তাহলে সেটা অর্জন করা সম্ভব। সেটা আম'রা প্রমাণ করেছি।

‘২৪ নভেম্বর নিউইয়র্ক সময় সকাল ১০টা, তখন বাংলাদেশ সময় সকাল ৮টা। সে সময় জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনের ৭৬তম অধিবেশনে ৪০তম সভায় সর্বসম্মতিক্রমে বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ ক্যাটাগরি থেকে উত্তরণের ঐতিহাসিক রেজুলেশন গৃহীত হয়। এ প্রস্তাব গ্রহণের মাধ্যমে আম'রা এলডিসি (স্বল্পোন্নত দেশ) থেকে উত্তরণের প্রক্রিয়া আমাদের সম্পন্ন হলো।’

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই আম'রা কাজ করে যাচ্ছিলাম দেশের মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে। আজকে আম'রা স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে যে গ্র্যাজুয়েশন, এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। এটা এত তাড়াতাড়ি হয়নি। এটাও মনে রাখতে হবে।

‘আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর থেকেই আম'রা ২০০৯ সাল থেকে যে পরিকল্পনা নিয়েছি এবং তা বাস্তবায়ন করেছি। বাংলাদেশের দারিদ্র্যমুক্তি, মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নতি, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন, বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধি, রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন কাজ আম'রা করেছি এবং খুব পরিক'ল্পিতভাবে।’

পদে পদে প্রতিবন্ধকতার মুখে পড়ার কথা জানিয়ে সংসদ নেতা বলেন, ‘বারবার জনগণ ভোটে নির্বাচিত করেছে বলেই এ উত্তরণ সম্ভব হয়েছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এটা বলার অ'পেক্ষা রাখে না, এই কাজগুলো যে আম'রা খুব সহ'জভাবে করতে পেরেছি, তা না। আম'রা দেশের জনগণের জাতীয় জীবনের সার্বিক উন্নয়নের জন্য প্রচেষ্টা চালিয়েছি। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের নেতৃত্বে মানুষের সে গৌরবজনক যাত্রা শুরু হয়।

‘আম'রা ২০১৮ সালে প্রথম জাতিসংঘের যে কমিটি-সিডিপি, বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের সুপারিশ করে। আম'রা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে যে বারবার সরকারে আসতে পেরেছি, তার ফলে যে উন্নতি আম'রা করতে পেরেছি, তারই ফসল হচ্ছে এ স্বীকৃতি।’

Back to top button

You cannot copy content of this page